in

স্মার্টফোনে অটো অ্যাড বন্ধ করবেন কিভাবে?

অ্যাডের সাথে পরিচিত নয় এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। টেলিভিশন,রেডিও, ফোন থেকে শুরু করে ইন্টারনেটের সবজায়গায়ই শুধু বিজ্ঞাপন আর বিজ্ঞাপন।বিশেষ করে      স্মার্টফোনে অটো অ্যাড আসাটা বেশ বিরক্তিকর। স্মার্টফোনে যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তাদের মধ্যে প্রায় ৬৫/৭০% লোকেরাই এই অ্যাডের যন্ত্রণা ভোগ করছেন।

অ্যাড বন্ধ

ইদানীং বিভিন্ন ক্ষতিকারক Apps বা বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইটগুলি আমাদের ফোনে কিছু adware virus ছড়িয়ে দেয়। এ কারণে pop-up adds,notification add বা অন্য কোন বিরক্তিকর অ্যাড আপনা আপনিই চলে আসে আপনার ফোনে। গুরুত্বপূর্ণ কাজে বা ইউটিউবে ভিডিও দেখার সময় বা নেটে সার্চ করার সময় হঠাৎ করে যদি অ্যাড এসে পড়ে তখন কতটা রাগ উঠে আপনিই ভাবুন।

তাই এসব অপ্রয়োজনীয় এবং বিরক্তিকর অ্যাড বন্ধ করার জন্য আমরা কিছু উপায় ব্যবহার করতে পারি। স্মার্টফোনে অটো ads আসা বন্ধ করবেন কীভাবে আজ আমি এ বিষয়ে আপনাদের সহজ সমাধান দেওয়ার চেষ্টা করব।

মোবাইল বিজ্ঞাপন কী? (What is Mobile Advertising?)

মোবাইল বিজ্ঞাপন মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিজ্ঞাপনের ধরণ। এটি মোবাইল মার্কেটিং এর একটি উপসেট।কল, এসএমএস পাঠ্য, মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন (অ্যাপস) এ এমবেড করা বিজ্ঞাপনগুলির মাধ্যমে এই বিজ্ঞাপনগুলি বিভিন্ন রূপ নেয়।

ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টুইটার ইত্যাদির মতো জনপ্রিয় সামাজিক মিডিয়া ওয়েবসাইটগুলি ব্যবহারকারীদের জন্য বিনামূল্যে। কিন্তু উপার্জন করার জন্য, তারা তাদের দর্শকদের টার্গেট করার জন্য ব্যবসায়গুলিকে এই ওয়েবসাইটগুলিতে বিজ্ঞাপন চালাতে দেয়।

তাই, যখন আপনি আপনার স্মার্টফোনটি ব্যবহার করেন এবং আপনার সার্চ ইতিহাসের ভিত্তিতে এই ওয়েবসাইটগুলিতে যান, তখন তারা আপনার পছন্দগুলি এবং কী চান তা গেজ করে। তারপরে, তারা আপনার যে পণ্য / পরিষেবাদির জন্য আগ্রহী সেগুলির জন্য লক্ষ্যযুক্ত বিজ্ঞাপনগুলি আপনাকে পাঠিয়ে দেবে এই প্রত্যাশার সাথে প্রেরণ করে।

মোবাইলে অ্যাড বা বিজ্ঞাপন কেন আসে?

Google playstore বা অন্য কোনো app store থেকে apps ডাউনলোড করে ফোনে ইনস্টল করেলে, সেসময় advertising script কিছু ক্ষেত্রে adware virus এবং ad-framework সেই apps গুলির সাথে আপনার মোবাইলে জায়গা করে নেয়।এর ফলে,আপনি যখন ডাটা বা ওয়াইফাই কানেক্ট করেন তখন adware virus বা advertising script গুলো নিজে নিজেই আসতে থাকে।

এতে বিভিন্ন ধরনের বিরক্তিকর অ্যাড আপনার ফোনে দেখানো হয়।apps এর মালিক বা developers রা এই অ্যাড এর মাধ্যমেই টাকা আয় করে এবং অধিক আয়ের লোভে, app developers রা এই ধরণের adware virus বা script ব্যবহার করে।

এর ফলে developers রা বারবার অধিক পরিমাণে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে তাদের ইনকাম বৃদ্ধি করে।এভাবে আপনার নেট চালু থাকা অবস্থায় বারবার এ বিজ্ঞাপনগুলো এসে আপনার গুরুত্বপূর্ণ কাজে বারবার ব্যাঘাত ঘটাবে।ফলে মোবাইলে কাজ করাটা বিরক্তিকর হয়ে দাঁড়ায়।

মোবাইলে বিজ্ঞাপনের প্রকারভেদ:

  • ব্যানার বিজ্ঞাপন (Banner ads)
  • ভিডিও বিজ্ঞাপন (Video ads) 
  • পূর্ণ-স্ক্রিন বা আন্তঃস্থায়ী মোবাইল বিজ্ঞাপন (Full-screen or interstitial mobile advertising)
  • স্থানীয় অ্যাপ-ভিত্তিক বিজ্ঞাপন (Local app-based advertising)
  • গামিফাইড মোবাইল বিজ্ঞাপন (Gumified mobile)

মোবাইল বিজ্ঞাপনের  উপকারিতা:

মোবাইল ফোনের বিজ্ঞাপন সাধারণত পাঠ্য-ভিত্তিক বিজ্ঞাপন, ব্যানার বিজ্ঞাপন, ভিডিও বা এমনকি মোবাইল গেম হিসাবেও হতে পারে।মোবাইলের পর্দার গড় আকার বিবেচনা করে বিজ্ঞাপনগুলি একটি ছোট ডিসপ্লে এলাকায় ফিট করার জন্য অনুকূলিত হয়।

ডেটা সংগ্রহের জন্য প্রথাগত কৌশল এবং কৌশলগুলি ব্যবহার করে। মোবাইল বিজ্ঞাপন মূলত মোবাইল বিপণনের একটি অংশ (part) এর মধ্যে ভোক্তার প্রোফাইল, ডেমোগ্রাফিক্স, অভ্যাস, পছন্দগুলি ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।শারীরিক স্তরে (পোস্টার, ব্যানার) আপনার বাজারে বা বাইরে যাওয়ার এবং পৌঁছানোর পরিবর্তে মোবাইল বিজ্ঞাপন স্মার্টফোন ডিভাইসের জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগায়।

মার্কেটিং প্রচারের ক্ষেত্রে মোবাইল বিজ্ঞাপনের আবিষ্কার বিপ্লবী হয়ে উঠেছে।মার্কেটিং এর প্রধান সুবিধাগুলোর মধ্যে গ্রাহকের ব্যস্ততার হার, ব্যয়-কার্যকারিতা, ব্যক্তিগতকৃত ভোক্তা সম্পর্ক এবং সামাজিক যোগাযোগের বন্ধুত্বপূর্ণতা ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।মোবাইল বিজ্ঞাপনের যেমন সুবিধা রয়েছে তেমনি অসুবিধাও রয়েছে।

মোবাইল বিজ্ঞাপনের সুবিধা (Advantages of Mobile Advertising):

  • এটি রিয়েল-টাইম পরিস্থিতিতে লোকের কাছে পৌঁছে।
  • এটি কার্যকর হওয়ার জন্য কম সামগ্রীর প্রয়োজন।
  • তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবহারকারীদের দেখায়।
  • এটি এমন জিনিস তৈরি করে যা ভাগ করে নেওয়া যায়।
  • এমন ডেটা তৈরি করে যা তাৎক্ষণিকভাবে ট্র্যাক করা যায়।
  • তাৎক্ষণিক লেনদেনের জন্য মোবাইলে অর্থ প্রদানের অ্যাক্সেস দেয়।
  • এটি একাধিক উপায়ে ব্যবহার করা যেতে পারে ইত্যাদি। 

মোবাইল বিজ্ঞাপনের অসুবিধা(Disadvantages of Mobile Advertising):

  • ভুল সংশোধন করা কঠিন।
  • গ্রাহকরা বিরক্তবোধ করে।
  • কাস্টমাইজেশন সমস্যা।
  • খারাপ ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা।
  • সঠিক তথ্য নয়।
  • তাৎক্ষণিক পরিবেশন করা কঠিন।
  • উপেক্ষা করা সহজ।
  • মাঝে মাঝে এমন বিজ্ঞাপন দেখায় যা লোকেরা ঘৃণা করে।
  • কিছু ব্যবহারকারীকে আপনার সংস্থা সম্পর্কে ধারণা তৈরি করতে বাধ্য করতে পারে।
  • এটি কিছু ব্যবহারকারীর জন্য নেভিগেশনাল সমস্যা তৈরি করতে পারে।
  • ধীরে ধীরে ডেটা স্থানান্তর ইত্যাদি। 

বর্তমান বিশ্বে জনসংখ্যার চেয়ে বেশি মোবাইল সাবস্ক্রিপশন রয়েছে।কিন্তু অতিরিক্ত অ্যাডের জন্য মোবাইল চালানোই অনেক কঠিন হয়ে গেছে। তাই,আজ আমি আপনাদের জানাবো,  অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে অটো অ্যাড কীভাবে বন্ধ করা যায়।

স্মার্টফোনে অটো অ্যাড বন্ধের উপায়

দু ধরণের মাধ্যম থেকে স্মার্টফোনে মূলত অটো অ্যাড আসে।যথা:

  • ইন্টারনেট ব্রাউজ করার সময়। 
  • অ্যাড যুক্ত অ্যাপ ব্যবহার করার সময়।

নিচে আমারা, এই দুটি মাধ্যমে অ্যাড বন্ধ করার ভিন্ন ভিন্ন পদ্ধতি আলোচনা করবো।

ইন্টারনেট ব্রাউজারের অ্যাড বন্ধ করার উপায়

বর্তমানে প্রায় সকল ব্রাউজারেই অ্যাড বন্ধ করার সহজ উপায় রয়েছে। কিছু কিছু ব্রাউজারে এই সুবিধা না থাকলেও দুশ্চিন্তার কিছু নেই কারণ অ্যাপ ব্যবহার করেও অ্যাড বন্ধ করার উপায় রয়েছে। ব্রাউজারের মাধ্যমে অ্যাড বন্ধ করার জন্য, আপনার শুধু অ্যাড ব্লক ব্রাউজারগুলো ব্যবহার করলেই হবে। এসব ব্রাউজার দিয়ে, যেকোনো ওয়েবসাইটে প্রবেশ করলেও কোন ধরণের অটো অ্যাডের ঝামেলায় পড়তে হবে না।

নিচে জনপ্রিয় কিছু অ্যাড ব্লক ব্রাউজারের তালিকা দেওয়া হলো।এখান থেকে যে কোনো ব্রাউজার আপনার ফোনে ইন্সটল করে, অ্যাড মুক্ত ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন। ব্রাউজারগুলো হলো:

  • Brave
  • Opera
  • Kiwi Browser
  • Firefox Browser
  • Via Browser
  • CyberSec by NordVPN
  • CleanWeb by Surfshark

অ্যাপে অ্যাড বন্ধ করার উপায়:

অ্যাপে অ্যাডের কারণেও অটো অ্যাড আসে।প্রথমে অ্যাপের অ্যাড বন্ধ করলেই অটো অ্যাড বন্ধ করা যাবে।অ্যাড ব্লকার ব্যবহার করে অ্যাপের অটো এড বন্ধ করতে হবে।নেটে অনেক অ্যাড ব্লকার অ্যাপ রয়েছে।নিচে কিছু অ্যাড ব্লকারের নাম দেওয়া হল:

  • Blokada
  • Block This
  • AdClear
  • Adblock
  • AdGuard
  • Adblock Plus
  • AdAway

এখান থেকে ইচ্ছে অনুযায়ী যেকোনো অ্যাপ ব্যবহার করে খুব সহজেই আপনার ফোনে আসা অটো অ্যাড বন্ধ করতে পারবেন।

আর এতেও যদি অটো অ্যাড বন্ধ না হয় তাহলে আপনার ফোন ফরম্যাট (Format) বা রিস্টোর (Restore) করলে ১০০% সমাধান হয়ে যাবে।   তাছাড়া আপনি যদি আপনার স্মার্টফোনের ব্যাটারি দ্রুত চার্জ করতে চান তবে নিচের আর্টিকেলটি দেখতে পারেন-

স্মার্টফোনের ব্যাটারি ফাস্ট চার্জ করার উপায়


আজ এখানেই থাকল।অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে অটো অ্যাড কীভাবে বন্ধ করবেন আশা করি সে বিষয়ে কিছুটা হলেও ধারণা দিতে পেরেছি।এ বিষয়ে কোনকিছু জানার বা অভিযোগ থাকলে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে লিখে জানাবেন আমরা সমাধান দেওয়ার চেষ্টা করব।ধন্যবাদ।

What do you think?

Written by Israt Jahan Reya

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

যে ৩টি কারণে অবশ্যই ভিডিও এডিটিং শেখা উচিত

যে কোন ফরম্যাটে স্মার্টফোনে নিজে নিজে ই বুক তৈরি করুন!